fbpx

ডাক বিভাগের ডিজিটাল লেনদেন

প্রতিটি মানুষই আজ ব্যস্ত। ডিজিটাল প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে কম সময় আর সহজে মানুষ এখন যোগাযোগ করছে প্রতিনিয়ত। তাই সময় ও সহজলভ্যতার কথা চিন্তা করে, ‘নগদ’ তার গ্রাহকের জন্য নিয়ে এসেছে  দেশের যেকোন মোবাইল নাম্বার থেকে *১৬৭# নাম্বারে ডায়াল করে খুব সহজেই ‘নগদ’ একাউন্ট খোলার অভিনব পদ্ধতি। এখন ‘নগদ’ একাউন্ট খুলতে মাত্র দু’টি ধাপেই  পিন সেট আপ করে চালু করা যাবে ‘নগদ’ একাউন্ট। *১৬৭# ডায়াল করে ‘নগদ’ একাউন্ট খোলার এই সুবিধাটি গ্রহণ করতে পারবেন দেশের সকল মোবাইল অপারেটরের গ্রাহকরা।

ইউএসএসডি ( USSD) কোড ব্যবহার করে খুব সহজেই ‘নগদ’ একাউন্ট খুলতে নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করুন:

১. *১৬৭# ডায়াল করুন

২. প্রযোজ্য শর্তাবলি পড়ে ও সম্মতি জানিয়ে ৪ ডিজিটের পিন সেট করুন

৩. পুনরায় পিন টাইপ করে কনফার্ম করুন (গোপন পিনটি কাউকে বলবেন না)

৪.  এরপর মুনাফা পেতে চান কিনা বেছে নিন

ব্যস হয়ে গেলো আপনার ‘নগদ’ একাউন্ট।

‘নগদ’ এর গ্রাহক একাউন্ট নিবন্ধনের ক্ষেত্রে নিম্নে বর্ণিত “গ্রাহকের একাউন্ট নিবন্ধনের জন্য প্রযোজ্য শর্তাবলি” প্রযোজ্য হবে।

‘নগদ’ একাউন্ট খুললেই পাচ্ছেন ‘নগদ’ অ্যাপ থেকে ২০ টাকা রিচার্জে ২০ টাকা রিচার্জ বোনাস (প্ৰতি মাসে ২ বার)।  সাথেতো থাকছেই-

  • দেশের সর্বনিম্ন ক্যাশ আউট চার্জ
  • নগদ অ্যাপে সেন্ড মানি ফ্রি
  • বিল পে ফ্রি ( গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি )
  • সবচেয়ে বেশি মুনাফা
  • সেরা মোবাইল রিচার্জ অফার
  • ঝামেলাহীন পেমেন্ট অফার

ক্যাম্পেইনের বিস্তারিতঃ

  • এই ক্যাম্পেইনে অংশগ্রহণ এবং অতিরিক্ত ২০ টাকা রিচার্জ বোনাস পেতে হলে ‘নগদ’ গ্রাহকগণকে তাদের নিজের মোবাইল নাম্বারে ‘নগদ’ অ্যাপ থেকে ২০ টাকা রিচার্জ করতে হবে।
  • গ্রাহকদের ‘নগদ’ একাউন্টের পিনটি সেট করতে হবে এবং ‘নগদ’ একাউন্টটি ফুল প্রোফাইল হতে হবে।
  • সফলভাবে একাউন্ট রেজিস্ট্রেশান ও পিন সেট আপ করে গ্রাহক তার একাউন্টটি আপগ্রেড করে সেলফ রিচার্জ করার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ২০ টাকা রিচার্জ বোনাস পাবেন।
  • রেজিস্ট্রেশনের সময়সীমাঃ  ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ থেকে ৩১  মার্চ, ২০২১; শুধু যে সকল গ্রাহক এই সময়ের মধ্যে ‘নগদ’ একাউন্ট চালু করবে তারা এই রিচার্জের  উপর বোনাস অফারটিতে অংশগ্রহণ করতে পারবেন

রিচার্জে বোনাস অফার গ্রহণের সময়সীমা :  

o             ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ থেকে ১৫ জুন, ২০২১;

  • এক মাসের প্রতি ১৫ দিনে একবার একজন গ্রাহক এই ক্যাম্পেইনের অধীনে রিচার্জ বোনাস/রিওয়ার্ড পাবেন।
  • একজন গ্রাহক এই ক্যাম্পেইন সময়ে সর্বোচ্চ ৬ বার ২০ টাকা করে রিচার্জ বোনাস (সর্বোচ্চ ১২০ টাকা পর্যন্ত) পেতে পারেন, যদি সে এক মাসের প্রতি ১৫ দিনে একবার করে সেলফ রিচার্জ করেন।
  • যদি গ্রাহকের একাউন্টটি কোন কারণে ‘স্থগিত’ অবস্থায় থাকে, তবে এই একাউন্টটি এই ক্যাম্পেইনের আওতাধীন হিসেবে বিবেচিত হবে না।
  • ‘নগদ’ গ্রাহকের একাউন্ট সচল থাকা সত্ত্বেও, কোন অজানা কিংবা অনির্দিষ্ট কারণে টাকা বিতরণ প্রক্রিয়া ব্যর্থ হলে, ‘নগদ’ কর্তৃক পরবর্তী ২ মাসের মধ্যে ৩ (তিন) বার টাকা পাঠানোর উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। পরপর ৩ (তিন) বার চেষ্টার পরেও যদি টাকা পাঠানোর প্রক্রিয়াটি ব্যর্থ হয়, তবে সেই গ্রাহক এই ক্যাম্পেইনের আওতাধীন হিসেবে বিবেচিত হবে না।
  • এই ক্যাম্পেইনের শর্তাবলি পরিবর্তন/পরিবর্ধন করার কিংবা কোন প্রকার পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই সম্পূর্ণ ক্যাম্পেইন বাতিল করার অধিকার ‘নগদ’ কর্তৃক সংরক্ষিত।
  • এই ক্যাম্পেইন সংক্রান্ত যেকোন সিদ্ধান্ত নেয়ার এখতিয়ার ‘নগদ’ কর্তৃক সংরক্ষিত এবং এ সংক্রান্ত ‘নগদ’-এর সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে।
  • ‘নগদ’ ঘোষণা করে যে,

ক) ইহা কোন সময়েই গ্রাহকের কাছে তার একাউন্টের ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ড (ওটিপি) কিংবা পার্সোনাল আইডেন্টিফিকেশন নাম্বার (পিন) নাম্বার চাইবে না।

খ) ইহা গ্রাহককে কোন প্রকার লেনদেন করতে বলবে না।

গ) ইহা শুধু নির্বাচিত গ্রাহককে ১৬১৬৭ বা ০৯৬ ০৯৬ ১৬১৬৭ নাম্বার থেকেই যোগাযোগ করবে। গ্রাহক অফার সংক্রান্ত যেকোন প্রকার বিভ্রান্তি বা দ্বিধাজনিত কারণে নিশ্চিত হবার জন্য ১৬১৬৭ অথবা ০৯৬ ০৯৬ ১৬১৬৭ নাম্বারে কল করতে পারেন ।

উপরিউক্ত কারণসমূহ এবং এছাড়াও তৃতীয় কোন পক্ষের কোন কার্যের জন্য কোন ক্ষতি সাধিত হলে   ‘নগদ’ কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না।

  • যে কোন প্রকার মতবিরোধ দেখা দিলে গ্রাহককে প্রথমেই ১৬১৬৭ অথবা ০৯৬ ০৯৬ ১৬১৬৭ নাম্বারে কল করতে হবে।
  • এই শর্তাবলি বাংলা এবং ইংরেজি উভয় ভাষায় হবে এবং বাংলা ও ইংরেজির মধ্যে কোন সংঘর্ষ দেখা দিলে ইংরেজি প্রাধান্য পাবে।

দেশের সর্বনিম্ন ক্যাশ আউট চার্জ

দেশের মোবাইল ব্যাংকিং-এর ইতিহাসে এই প্রথম ডাক বিভাগের ডিজিটাল লেনদেন ‘নগদ’ নিয়ে আসলো সব থেকে কম খরচে ক্যাশ আউট করার সুবিধা। এখন মাত্র ৯ টাকা ৯৯ পয়সাতে (প্রতি হাজারে) ক্যাশ আউট করতে পারবেন ‘নগদ’ অ্যাপে আর  ইউএসএসডি-তে ক্যাশ আউট করতে পারবেন ১২ টাকা ৯৯ পয়সায়  (প্রতি হাজারে)। যেকোনো পরিমাণ ক্যাশ আউট-এর ক্ষেত্রে আনুপাতিক হারে চার্জ প্রযোজ্য। বিস্তারিত নিম্নোক্ত টেবিলে দেখুন । এবার কম খরচে লেনদেন করুন ইচ্ছেমত।

মাধ্যম
ক্যাশ আউট চার্জ - প্রতি হাজারে
(ভ্যাট ছাড়া)
ক্যাশ আউট চার্জ - প্রতি হাজারে
(ভ্যাট সহ)
অ্যাপ৯.৯৯ টাকা১১.৪৯ টাকা
ইউএসএসডি১২.৯৯ টাকা১৪.৯৪ টাকা
  • সরকার নির্ধারিত ভ্যাট প্রযোজ্য
  • অ্যাপ-এ ক্যাশ আউট চার্জ প্রতি হাজারে  ১১.৪৯ টাকা (দুই দশমিক স্থান পর্যন্ত) দেখানো হয়েছে যেখানে প্রকৃত পরিমাণ ১১.৪৮৮৫ টাকা এবং ইউএসএসডি-তে চার্জ প্রতি হাজারে ১৪.৯৪ টাকা (দুই দশমিক স্থান পর্যন্ত) দেখানো হয়েছে যেখানে প্রকৃত পরিমাণ ১৪.৯৩৮৫ টাকা।
  • উপরের শর্ত প্রসঙ্গে উল্লেখ্য যে, অ্যাপ, ইউএসএসডি (এসএমএস) এবং ‘নগদ’ ওয়েবসাইটে প্রদর্শিত চার্জসমূহের মধ্যে যদি কোন অসামঞ্জস্য পরিলক্ষিত হয়, তবে ‘নগদ’ ওয়েবসাইটে প্রদর্শিত চার্জটি অগ্রাধিকার পাবে।

গ্রাহকের একাউন্ট নিবন্ধনের জন্য প্রযোজ্য শর্তাবলি:

১। থার্ড ওয়েভ টেকনোলজিস লিমিটেড-এর ‘নগদ’ নামে উল্লিখিত ডিজিটাল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস (নগদ সেবা) গ্রহণকারী ‘নগদ’ গ্রাহক নামে পরিচিত হবেন এবং একমাত্র এই গ্রাহকই ডিজিটাল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস একাউন্টটির (নগদ একাউন্ট) ব্যবহারকারী হবেন।

২। বাংলাদেশের প্রচলিত আইন, বাংলাদেশ ডাক বিভাগ ও অন্যান্য নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষ কর্তৃক জারিকৃত ডিজিটাল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস সরবরাহের জন্য প্রযোজ্য বিধি-বিধান, নীতিমালা, সার্কুলার এবং আদেশ/নির্দেশ অনুযায়ী ‘নগদ’ সেবা এবং ‘নগদ’ একাউন্ট-এর লেনদেন/কার্যক্রম পরিচালিত হবে। ‘নগদ’ গ্রাহক এই নীতিমালা মেনে চলতে বাধ্য থাকবেন।

৩। প্রযোজ্য ক্ষেত্রে ‘নগদ’ একাউন্ট নাম্বারটি ‘নগদ’ সম্পর্কিত সব রকম দলিলে সঠিকভাবে উল্লেখ করতে  হবে। ভুল নাম্বার উল্লেখ করার কারণে কোন রকম ক্ষয়ক্ষতির জন্য ‘নগদ’ কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না।

৪। ‘নগদ’ একাউন্টে পর্যাপ্ত ব্যালেন্সের অভাবে লেনদেন সম্পন্ন না হলে তার জন্য ‘নগদ’ দায়ী থাকবে না এবং এ সংক্রান্ত চার্জ নিয়ম অনুযায়ী গ্রাহককে বহন করতে হবে।

৫। ‘নগদ’ গ্রাহক কাউন্টার ত্যাগ করার পূর্বে তার ‘নগদ’ একাউন্ট থেকে যথাযথ পরিমাণ ক্যাশ ইন/ ক্যাশ আউট/ পেমেন্ট ইত্যাদি সম্পন্ন হয়েছে কিনা সে ব্যাপারে নিশ্চিত হবেন। পরবর্তীতে কোন অভিযোগ গ্রহণযোগ্য হবে না। গ্রাহক একাউন্ট থেকে ‘নগদ’ প্রয়োজন অনুসারে কার্ড সম্পর্কিত ফি এবং চার্জ কেটে নিতে পারে। কোম্পানির নিয়মানুযায়ী কার্ডের ব্যবহার ও কার্ড ব্যবহারের খরচ পরিবর্তন হতে পারে।

৬। ‘নগদ’ গ্রাহক/ নগদ সেবা ব্যবহার করে প্রতিটি লেনদেনের পূর্বে প্রাপকের যথার্থতা নিশ্চিত করবেন। প্রযোজ্য ক্ষেত্রে ‘নগদ’ একাউন্ট নাম্বার, টাকার পরিমাণ, গোপন নাম্বার এবং লেনদেন সংক্রান্ত তথ্য দেয়ার  সময় সতর্ক থাকবেন। লেনদেন করার সময় কোনরকম ভুল তথ্য বা নির্দেশনা প্রদান করলে বা কোন প্রকার প্রলোভন, মিথ্যা উপস্থাপনা বা প্রতারণার শিকার হয়ে কোন লেনদেন করলে, এর জন্য একমাত্র গ্রাহকই ব্যক্তিগতভাবে এবং এককভাবে দায়ী থাকবেন। ‘নগদ’ কোনভাবেই এই লেনদেনকৃত অর্থ ফেরত প্রদানের দায়িত্ব গ্রহণ কিংবা বহন করবে না।

৭। ‘নগদ’ সেবা সংশ্লিষ্ট সকল প্রকার মূল্য ও ব্যয় (বৈধ মূসকসহ) এবং নিয়মানুযায়ী সকল সেবা মূল্য এবং/ অথবা রক্ষণাবেক্ষণ খরচ সময়ে সময়ে নির্ধারণ, পরিবর্তন, পরিবর্ধন ও সমন্বয়ের ক্ষমতা ‘নগদ’  সংরক্ষণ করে এবং এই সকল খরচ ‘নগদ’ একাউন্ট থেকে কেটে নেয়া হবে।

৮। মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন-২০১২, সন্ত্রাস বিরোধী আইন-২০০৯, বাংলাদেশ ডাক বিভাগ কর্তৃক জারিকৃত সার্কুলার/নীতিমালা অনুযায়ী ‘নগদ’ গ্রাহক, ‘নগদ’-এর চাহিদা মোতাবেক যেকোন তথ্য ‘নগদ’  -কে প্রদান করতে বাধ্য থাকবেন।

৯। ‘নগদ’ গ্রাহকের একাউন্ট ও লেনদেন সংক্রান্ত তথ্যের ক্ষেত্রে ‘নগদ’ সর্বোচ্চ গোপনীয়তা বজায় রাখবে। তবে নিম্নলিখিত যেকোন ক্ষেত্রে ‘নগদ’ গ্রাহক সম্পর্কিত যেকোন তথ্য প্রকাশ/প্রদান করার  ক্ষমতা সংরক্ষণ করে-

  • ‘নগদ’-এর উপরে এখতিয়ারপ্রাপ্ত নিয়ন্ত্রণকারী, তত্ত্বাবধানকারী অথবা সরকারি কোন কর্তৃপক্ষের প্রয়োজনে
  • আদালতের আদেশ অথবা আইন অনুযায়ী অনুমোদিত কোন ব্যক্তির প্রয়োজনে
  • ‘নগদ’-এর বিভিন্ন অনুমোদিত কার্যক্রম সম্পাদনের উদ্দেশ্যে যেকোন ব্যক্তির প্রয়োজনে
  • ‘নগদ’-এর বিভিন্ন অনুমোদিত কার্যক্রম সম্পাদনের উদ্দেশ্যে যেকোন সেবা প্রদানকারী অথবা আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা সংস্থার নিকট

১০। ‘নগদ’ গ্রাহক, তার ‘নগদ’ একাউন্ট-এর গোপন নাম্বার (PIN) কখনই কারো কাছে প্রকাশ করবেন না এবং এর সর্বোচ্চ গোপনীয়তা ও সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্য ব্যক্তিগতভাবে ও এককভাবে দায়ী থাকবেন।  গোপন নাম্বারের গোপনীয়তা ভঙ্গ বা অপব্যবহারের আশঙ্কা দেখা দিলে অবিলম্বে তা পরিবর্তন করে ফেলবেন। ‘নগদ’ গ্রাহক কর্তৃক অবহেলা, অসতর্কতা, ভুল বা গোপন নাম্বারের কোন প্রকার  অপব্যবহারের কারণে ‘নগদ’ গ্রাহক কোনভাবে প্রতারিত এবং/অথবা ক্ষতিগ্রস্ত হলে ‘নগদ’ কোনভাবেই দায়ী থাকবে না। মোবাইল ফোন বা সিম হারিয়ে গেলে ‘নগদ’ গ্রাহক তাৎক্ষণিকভাবে ‘নগদ’ হেল্পলাইনে (16167) ফোন করে ‘নগদ’ একাউন্ট বন্ধ করে দেবেন এবং পরবর্তী পদক্ষেপের জন্য ‘নগদ’-এর সাথে যোগাযোগ করবেন। ‘নগদ’ কার্ড (স্ক্র্যাচ কার্ড, পোস্টাল ক্যাশ কার্ড, ভার্চুয়াল কার্ড ইত্যাদি) হারানো সম্পর্কে অবহিত করার পূর্বে কোন অননুমোদিত লেনদেনের জন্য ‘নগদ’ দায়ী থাকবে না।

১১। ‘নগদ’ গ্রাহক সর্বদা তার ‘নগদ’ একাউন্ট ব্যবহার করে যেকোন প্রকার আর্থিক লেনদেন সম্পর্কিত  ব্যবসা করা থেকে বিরত থাকবেন। ‘নগদ’ গ্রাহক যদি এই ফর্মের শর্তাবলি লঙ্ঘন করেন বা করার চেষ্টা  করেন অথবা ‘নগদ’-এর বিবেচনায় নগদ গ্রাহকের লেনদেন আচরণ সন্দেহজনক হলে, গ্রাহকের বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ থাকলে, নিরাপত্তাজনিত বা অন্য যে কোন যুক্তিসঙ্গত কারণে পূর্ব নোটিশ প্রদান ব্যতিরেকে ‘নগদ’ যেকোন সময় ‘নগদ’ গ্রাহকের একাউন্ট স্থগিত করা, বাতিল করা, বন্ধ করা বা ‘নগদ’    -এর বিবেচনায় সঠিক অন্য যেকোন প্রকার শাস্তিমূলক বা আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার অধিকার সংরক্ষণ করে। এক্ষেত্রে ‘নগদ’-এর সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত ও গ্রাহকের জন্য বাধ্যতামূলক হবে।

১২। ‘নগদ’ গ্রাহক সর্বদাই ‘নগদ’ কর্তৃক যেকোন মাধ্যমে তার কাছে প্রেরিত নির্দেশনাসমূহ মেনে চলতে বাধ্য থাকবেন। অন্যথায় যথাযথ তদন্ত সাপেক্ষে ‘নগদ’ এই গ্রাহকের একাউন্ট স্থগিত করা বা বাতিল  করাসহ গ্রাহকের বিরুদ্ধে যেকোন প্রকার সংশোধনমূলক বা আইনগত ব্যবস্থা নিতে পারবে। এক্ষেত্রে ‘নগদ’-এর সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত ও গ্রাহকের জন্য বাধ্যতামূলক বলে গণ্য হবে। তদন্ত চলাকালীন ‘নগদ’  গ্রাহকের একাউন্ট স্থগিত করে রাখার ক্ষমতা সংরক্ষণ করে। তবে এসএমএস/ফোন কলের মাধ্যমে যদি গ্রাহককে কোন লেনদেন করতে বলা হয় বা গোপন নাম্বার বা একাউন্ট সম্পর্কিত তথ্যাদি প্রকাশ করতে বলা হয়, তবে ‘নগদ’ গ্রাহক ‘নগদ’ কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে যাচাই করা ব্যতীত কোনভাবেই সেই লেনদেন করবেন না।

১৩। ‘নগদ’ একাউন্ট সংশ্লিষ্ট সিম কার্ড এবং সিম কার্ড প্রতিস্থাপন সংক্রান্ত যাবতীয় বিষয়াদির জন্য  একমাত্র ‘নগদ’ গ্রাহকই দায়ী থাকবেন। ‘নগদ’ এই সংক্রান্ত কোন দায়দায়িত্ব বহন করবে না। নিজের কার্ড দিয়ে করা সকল লেনদেন এবং কার্ডের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা গ্রাহকের দায়িত্ব। গ্রাহক ‘নগদ’ কর্তৃক প্রদত্ত সকল জিনিসের (স্ক্রাচ কার্ড, পোস্টাল ক্যাশ কার্ড, ভার্চুয়াল কার্ড নাম্বার) নিরাপত্তা নিশ্চিত করবেন। এ সকল জিনিসের নষ্ট  হওয়া বা হারানোর কারণে গ্রাহকের কোন আর্থিক ক্ষতি হলে তার জন্য গ্রাহক নিজেই দায়ী থাকবেন।

(ক) মালিকানা প্রমাণ করার জন্য গ্রাহককে অবশ্যই কার্ডের পেছনে স্বাক্ষর করতে হবে।

(খ) এই চুক্তি ছাড়াও, ‘নগদ’-এর একাউন্ট পরিচালনা বিষয়ক বর্তমান নিয়ম ও শর্তাবলি কার্ডের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হবে। যদি এই চুক্তি ও একাউন্ট পরিচালনা বিষয়ক বর্তমান নিয়ম ও শর্তাবলির ভেতরে কোন দ্বন্দ্ব বা অসঙ্গতি দেখা দেয়, তবে এই চুক্তি বাতিল করা হবে।

১৪। নগদ একাউন্ট সংশ্লিষ্ট সিম কার্ড প্রতিস্থাপন হলে সংশ্লিষ্ট মোবাইল নেটওয়ার্ক অপারেটরের কাছ  থেকে প্রতিস্থাপন সংক্রান্ত তথ্য পাওয়ার পর ‘নগদ’ এই একাউন্টটির কার্যক্রম বন্ধ করে দেবে। অন্তত ২৪ ঘণ্টা এই ‘নগদ’ একাউন্টটি স্থগিত থাকবে। শুধুমাত্র গ্রাহকই তার নিজের কার্ড ব্যবহার করতে পারবেন।

১৫। ‘নগদ’ গ্রাহককে কোন পূর্ব ঘোষণা প্রদান ব্যতিরেকে ‘নগদ’ যেকোন সময়ে যেকোনভাবে বর্তমান নিয়মাবলি সংশোধন, সংযোজন, বিয়োজন, পরিবর্ধন ও পরিবর্তন করার ক্ষমতা সংরক্ষণ করে, যা সময়ে সময়ে ‘নগদ’-এর ওয়েবসাইটে আপডেট করা হবে। নিয়মাবলির সর্বশেষ সংস্করণ গ্রাহক যেকোন সময়ে ওয়েবসাইট থেকে দেখে নিতে পারবেন। ফর্মে উল্লিখিত শর্তাবলি ও ওয়েবসাইট সংস্করণের মধ্যে দ্বন্দ্ব দেখা দিলে ওয়েবসাইট সংস্করণ প্রাধান্য পাবে।

১৬। ‘নগদ’ উপযুক্ত নিয়মনীতি অনুসারে যেকোন সময় নগদ গ্রাহকের কাছে প্রচার সংক্রান্ত আইভিআর (IVR), ফোন কল অথবা এসএমএস পাঠানোর অধিকার সংরক্ষণ করে।

১৭। ‘নগদ’ গ্রাহক তার ‘নগদ’ একাউন্ট সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করে দিতে চাইলে, উক্ত একাউন্ট-এ জমাকৃত টাকা শুধুমাত্র যেকোন ‘নগদ’ সেবা ব্যবহার করা সাপেক্ষে শূন্য (Nil Balance) করে একাউন্ট বন্ধ করতে পারবেন।

১৮। ‘নগদ’ একাউন্টে জমাকৃত টাকার উপর কোন প্রকার সুদ প্রদান করার মানদন্ড বা হার নির্ণয় করার যাবতীয় অধিকার ‘নগদ’ সংরক্ষণ করে। ‘নগদ’ গ্রাহক সুদ গ্রহণ করতে অনিচ্ছুক হলে ‘নগদ’ হেল্পলাইন (১৬১৬৭)-এ ফোন করে তা বন্ধ করতে পারবেন।

১৯। কোন প্রকার অপ্রত্যাশিত বা অনিবার্য কারণবশতঃ গ্রাহকের ‘নগদ’ একাউন্ট চালু করতে বা কোন সেবা প্রদান করতে বিলম্বের কারণে ‘নগদ’ কর্তৃপক্ষ কোনভাবেই দায়ী হবে না। ‘নগদ’ কোন প্রকার প্রতিজ্ঞাবদ্ধ না হয়ে ‘নগদ’ সেবা সফলভাবে প্রদান করার জন্য সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা করে যাবে।

২০। ‘নগদ’ গ্রাহক, ‘নগদ’ সেবা সংক্রান্ত যেকোন অভিযোগ ‘নগদ’ সেন্টার বা ‘নগদ’ হেল্পলাইন (১৬১৬৭) -এ ফোন করে অথবা মেইল করে লেনদেনের সর্বোচ্চ ১০ দিনের মধ্যে জানাতে পারেন। ‘নগদ’ সব সময়ই ‘নগদ’ গ্রাহকের লেনদেন সম্পর্কিত কোন দ্বন্দ্ব বা অভিযোগ মীমাংসা করার জন্য তদন্ত পরিচালনা, অভিযোগকারী এবং/অথবা অভিযুক্ত ‘নগদ’ গ্রাহককে ‘নগদ’-এর প্রধান কার্যালয়ে ডেকে পাঠানো, নগদ গ্রাহকের একাউন্ট স্থগিত করা, বন্ধ করা, নিষ্পত্তি করাসহ ‘নগদ’-এর বিবেচনায় সঠিক যে কোন সংশোধনমূলক বা আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার অধিকার সংরক্ষণ করে।

(ক) কার্ড সংঘটিত যে কোন লেনদেনের রেকর্ড চূড়ান্ত বলে বিবেচ্য হবে এবং সকল ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে।

(খ) কার্ড হারিয়ে গেলে/চুরি হয়ে গেলে গ্রাহককে সাথে সাথে ‘নগদ’ কল সেন্টারে ফোন করে জানাতে হবে। ‘নগদ’ এ বিষয়ে জানার পূর্বেই কার্ডের মাধ্যমে অননুমোদিত কোন লেনদেন হলে তার জন্য ‘নগদ’  দায়ী থাকবে না।

২১। ‘নগদ’ সিস্টেমে সংরক্ষিত লেনদেন সংশ্লিষ্ট যাবতীয় তথ্যাদি যেকোন দ্বন্দ্ব নিরসনে প্রাথমিক প্রমাণাদি হিসেবে বিবেচ্য হবে।

২২। মোবাইল টু ফিনটেক (এম টু এফ)/বেজ কনভার্শন এর মাধ্যমে শুধুমাত্র *১৬৭# কিংবা এপের মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন করে গ্রাহক নিবন্ধনের ক্ষেত্রে, ‘নগদ’ গ্রাহকের পরিচয় পত্রের ধরণ, পরিচয় পত্র নাম্বার, জন্ম তারিখ সংক্রান্ত তথ্য সংশ্লিষ্ট মোবাইল নেটওয়ার্ক অপারেটর কিংবা প্রযোজ্য ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের থেকে গ্রহন করতে পারবে এবং কেওয়াইসি কিংবা তথ্যের সত্যতা যাচাই প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে তা যাচাইকরণও করতে পারবে।

২৩। ‘নগদ’ কার্ড ব্যবহারের ক্ষেত্রে উপরিল্লিখিত শর্তাবলির পাশাপাশি ‘নগদ’ কার্ডের জন্য প্রযোজ্য শর্তাবলিও প্রযোজ্য হবে। উভয় শর্তাবলির মধ্যে কোন বিরোধ দেখা দিলে এই শর্তাবলি প্রাধান্য পাবে।